প্লেগের হাদিসের ব্যাখ্যা কি?

হাদীস শরীফে রয়েছে

হযরত ‍উসামা ইবনে যাইদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন–“যখন তোমরা শুনবে যে, কোন স্থানে প্লেগ-রোগ হয়েছে, তাহলে সেখানে প্রবেশ করো না। আর যখন কোন স্থানে সেই রোগের প্রাদুর্ভাব হয় এবং তোমরা সেখানে থাকো, তাহলে সেখান হতে বের হয়ে যেয়ো না।

(সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৫৭২৮/ সহীহু মুসলিম, হাদীস নং ৫৯০৫)

এ হাদীসে মহামারি কবলিত স্থানে কেউ থাকলে তাকে সেখান থেকে বের হয়ে আসতে নিষেধ করা হয়েছে এ ঈমানী বিশ্বাসের ভিত্তিতেই যে, ছোঁয়াচে রোগ বলতে কিছু নেই। অধিকন্তু সেই নিষেধাজ্ঞার উদ্দেশ্য হলো, এমতাবস্থায় যাতে সেখান থেকে চলে আসার দ্বারা তার মনে এ বিশ্বাস স্থান না পায় যে, সে সেখানে থাকলে সেই রোগে আক্রান্ত হবে।

অপরদিকে উক্ত হাদীসে মহামারি কবলিত স্থানে কাউকে যেতে নিষেধ করা হয়েছে এ জন্য যে, যাতে সেখানে গিয়ে আল্লাহর হুকুমে সেই রোগে আক্রান্ত হলে, সে তার সেই ঈমানী পরীক্ষায় ফেল না করে এবং তার ঈমানকে নষ্ট না করে ফেলে এ কথা ভেবে যে, সেখানে যাওয়ার কারণেই তার এ রোগ হয়েছে। কেননা, ছোঁয়াচে রোগ বলতে কিছু নেই। বরং সবার সব রোগই মহান আল্লাহর হুকুমে নতুনভাবে হয়।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,

অসুস্থ ব্যক্তিকে সুস্থ ব্যক্তির কাছে উপস্থিত করা যাবে না। (বুখারী হা/৫৩২৮ ও মুসলিম হা/৪১১৭)

ইমাম নববী বলেন, কেননা এতে যদি আল্লাহর হুকুমে সুস্থ ব্যক্তি আক্রান্ত হয়, তাহলে সে তার তকদ্বীরের প্রতি বিশ্বাস না করে ঐ ব্যক্তিকে দোষারোপ করবে, ফলে তার ঈমান নষ্ট হয়ে যাবে। (শরহে মুসলিম ৭/৩৭৩)

কিন্তু সেই প্রকৃত বাস্তবতাকে সম্যকরূপে উপলব্ধি না করে শুধু বাহ্যিক অবস্থা দেখে কেউ হয়তো মনে করতে পারে যে, সেই রোগীর সংস্পর্শের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার মধ্যে সেই রোগ সংক্রামিত হয়েছে এবং এভাবে সে তার ঈমানকে ক্ষতিগ্রস্ত করে ফেলতে পারে। এ জন্য এ ধরনের পরীক্ষায় অবতীর্ণ

হওয়া থেকে নিজেকে দূরে রাখার জন্য হাদীস শরীফে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ সম্পর্কে হাদীস শরীফে রয়েছে

عَنْ أَبِى هُرَيْرَةَ رضي الله عنه أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ‏: لاَ يُورِدُ مُمْرِضٌ عَلَى مُصِحٍّ‏.

হযরত আবূ হুরাইরা (রা.) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন–“রোগগ্রস্ত উট যেন সুস্থ উটের উপরে উপনীত না হয়।

(সহীহু মুসলিম, হাদীস নং ৫৯০৫)

এ হাদীসে ঈমানের সুরক্ষার জন্য সেরূপ পরীক্ষায় অবতীর্ণ হতে নিষেধ করা হয়েছে যে, কেউ তার সুস্থ জন্তুকে কোন রোগাক্রান্ত জন্তুর সাথে রাখবে। কেননা, এতে সেই সুস্থ জন্তু রোগাক্রান্ত হলে হয়তো তার মনে কোনভাবে এ ধারণার উদ্রেক হতে পারে যে, তার সুস্থ জন্তুকে সেই রোগাক্রান্ত জন্তুর সাথে রাখার কারণেই সেই রোগ স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার মধ্যে সংক্রামিত হয়েছে। অথচ এ ধারণা সম্পূর্ণ ভুল ও ঈমানের পরিপন্থী। বরং আল্লাহ তাআলার হুকুমেই সেই রোগ সুস্থ জন্তুর মধ্যে পয়দা হয়েছে, তা সেই রোগের নিজস্ব সংক্রমণের দ্বারা হয়নি।

 

এ হাদীস দ্বারা বুঝা গেলোঈমানের সুরক্ষার জন্য এ ব্যবস্থা অবলম্বন করা বিধেয় যে, সুস্থ ব্যক্তি একান্ত প্রয়োজন না হলে দুরারোগ্যে রোগাক্রান্ত ব্যক্তির নিকটে যাবে না। যাতে তার নিকট যাওয়ার দ্বারা সেই রোগ মহান আল্লাহর হুকুমে তার মধ্যে পয়দা হলে তাতে যেন সে বিভ্রান্তিতে পড়ে সেই রোগকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সংক্রামক মনে করে ঈমানকে নষ্ট করার প্রয়াস না পায়।

 

এ ভিত্তিতেই একটি হাদীসে সেরূপ রোগাক্রান্ত ব্যক্তিকে মানুষের জমায়েত থেকে ফিরে তার আবাসে চলে যাওয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। উক্ত হাদীসের বিবরণ হলো

عَنْ عَمْرِو بْنِ الشَّرِيدِ عَنْ أَبِيهِ قَالَ كَانَ فِي وَفْدِ ثَقِيفٍ رَجُلٌ مَجْذُومٌ فَأَرْسَلَ إِلَيْهِ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ إِنَّا قَدْ بَايَعْنَاكَ فَارْجِعْ

হযরত আমর ইবনে শারীদ স্বীয় পিতা শারীদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণনা করেছেন যে, তিনি বলেছেন, বনী সাক্বীফের প্রতিনিধি দলে একজন ব্যক্তি কুষ্ঠরোগী ছিলেন। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার নিকট সংবাদ পাঠিয়ে বললেন–“নিশ্চয়ই আমরা তোমাকে বাইআত করে নিয়েছি। সুতরাং তুমি ফিরে যাও।

(সহীহু মুসলিম, হাদীস নং ২২৩১)

 

কিন্তু প্রয়োজন হলে কোন সুস্থ ব্যক্তির সেরূপ রোগীর নিকট যেতে কোন অসুবিধা নেই। কেননা, আল্লাহর হুকুম ছাড়া কোন রোগই কারো মধ্যে সংক্রমণ করতে পারে নাএ বিশ্বাস রাখা প্রত্যেক মুমিনের জন্য জরুরী। অধিকন্তু সেই রোগীর শুশ্রূষার জন্য অন্য কেউ না থাকলে তার জন্য তার নিকট যাওয়া এবং তার শুশ্রূষা করা আবশ্যক। তবে সেক্ষেত্রে ঈমানের সুরক্ষার জন্য তখন সে ইচ্ছা করলে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে, যেমন, মুখে মাস্ক লাগিয়ে এবং শরীরে জীবানুরোধক পোশাক পরে তার কাছে যেতে পারে। এতে আল্লাহর হুকুমে সে সেই রোগে আক্রান্ত হলে, তখন সেই রোগীর সংস্পর্শের কারণে সেই রোগের সংক্রমণের শিকার হয়েছে বলে কুফরী ভাবনার পরীক্ষার মধ্যে সে পড়বে না।

রোগ সংক্রমণ বা ছোঁয়াচে রোগ সম্পর্কে পূর্ণ বিশ্বাস করলে এ ধরনের ব্যাধির রোগীরা সবাই অস্পৃশ্যে পরিণত হবে। মানবতার হক আদায় তখন নিদারুণভাবে বাধাগ্রস্থ হবে। কেউ এ ধরনের রোগীর সেবা-শুশ্রুষা করতে এগিয়ে আসবেনা। ফলে আল্লাহর অগণিত বান্দা চিকিৎসা বা সেবা-শুশ্রুষা থেকে বঞ্চিত হবে।

এখন যেমন হচ্ছে।


শেয়ার করুন

লেখকঃ

পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট